গুগল ভয়েস বানিয়ে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করুন

আসসালামু আলাইকুম। আশা করছি সকলে ভালো আছেন। রিভিউ জোন বিডিতে আপনাদের সবাইকে স্বাগতম। আজকে আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করব গুগল ভয়েস নিয়ে। আপনারা কিভাবে গুগল ভয়েস বানিয়ে মাসে ১ লাখ টাকা ইনকাম করবেন ।আমি নিচে বলে দেব। আপনারা মনোযোগ দিয়ে দেখে নিবেন।

গুগল ভয়েস বানিয়ে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করুন
গুগল ভয়েস বানিয়ে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করুন

 

গুগল ভয়েস কি?

গুগল ভয়েস হচ্ছে আমেরিকার ভার্চুয়াল নাম্বার সাইট। আমেরিকান মানুষেরা পার্সোনাল নাম্বার শেয়ার করতে চায়না। এজন্য তারা গুগল ভয়েস ইউজ করে। গুগল ভয়েস 2009 সালে google আবিষ্কার করে। এখন কথা হচ্ছে আপনি কিভাবে গুগল ভয়েজ মার্কেটিং করবেন। গুগল ভয়েস মার্কেটিং করা বেশি কঠিন কাজ নয়। আপনি যদি একটু সময় দিয়ে কাজ করেন।

তাহলে আপনি প্রত্যেক মাসে লাখ টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আপনি চাইলে গুগল ভয়েস ক্রিয়েট করতে পারেন। গুগল ভয়েস ক্রিয়েট করার পর ওগুলোকে সেল করতে পারবেন। একপিস গুগল বয়েসের দাম বাংলাদেশে ৩০০ টাকা। এখন চিন্তা করেন আপনি যদি প্রতিদিন দশটা করে গোপাল ভাঁজ ক্রিয়েট করেন তাহলে আপনার প্রতিদিন ৩ হাজার টাকা আসতেছে। আপনি প্রতিদিন যেমন কাজ করেন ওইভাবে ইনকাম করতে পারবেন। এখানে কোন বাধ্যতামূলক নাই। যে আপনাকে এই সময় কাজ করতে হবে। আপনি যখন ইচ্ছা তখন কাজ করতে পারবেন। এখন আপনাদের প্রশ্ন হতে পারে গুগল ভয়েস মার্কেটিং কিভাবে করব?

গুগল ভয়েস মার্কেটিং করে ইনকাম কিভাবে করব?

আপনি গুগল ভয়েস মার্কেটিং কয়েকভাবে করতে পারেন। এগুলো আমি নিচে বলতেছি আপনি দেখে নিয়েন।
১)নিজে নিজে গুগল ভয়েস ক্রিয়েট করে ইনকাম করতে পারবেন।

২)আপনি একটি টিম বানিয়ে তাদের দিয়ে গুগল ভয়েস ক্রিয়েট করতে পারেন। তখন আপনার কাছে থাকলে আপনি ভালো একটা এমাউন্টে সেল করতে পারবেন।

৩) আপনি চাইলে রিসেলিং করেন ইনকাম করতে পারবেন।

আমার মনে হয় আপনারা উপরের দুইটা পয়েন্ট বুঝতে পারছেন। না বুঝতে পারলে আমি বলতেছি। আপনি যদি একা একা কাজ করতে চান মনে করেন আপনি প্রতিদিন দশটা করে গুগল ভয়েস ক্রিয়েট করবেন দশটা করে সেল করবেন এরকম আপনার পার্সোনালি কাজ। এখন প্রশ্ন হচ্ছে আপনি কিভাবে গুগল ভয়েস ক্রিয়েট করবেন। গুগল ভয়েস ক্রিয়েট করার জন্য আপনার একটি পিসি অথবা কোন দরকার হবে।

তারপর আপনাদের পেইড ভিপিএন দরকার হবে তারপরে এই আমেরিকান ভার্চুয়াল নাম্বার দরকার হবে। আরেক আমেরিকান আইপি জিমেইল একাউন্ট লাগবে। এখন কথা হচ্ছে আপনারা এগুলো কোথায় পাবেন। আপনারা গুগলে বিভিন্ন ভার্চুয়াল নাম্বার সাইট আছে ওগুলা থেকে নাম্বার কিনে নিতে হবে। তারপর ফেসবুকের বিভিন্ন ভিপিএন ভাই সেল গ্রুপ আছে ওখানে জয়েন্টে ওখান থেকে আপনি ভি পি এন নিতে পারবেন। এখন প্রশ্ন হচ্ছে আপনার একটি গুগল ভয়েস তৈরি করতে কত টাকা খরচ হবে।

গুগল ভয়েস তৈরিতে খরচ

খরচ বলতে প্রতি google ভয়েস এই ১০০ থেকে পর্যন্ত খরচ হতে পারে। আপনি একটি নাম্বার দিয়ে একটি গুগল ভয়েসই তৈরি করতে পারবেন। আপনি যদি একটি গুগল ভয়েসে ১০০ থেকে ১২০ টাকা খরচ করেন। তাহলে গুগল ভয়েসটি সেল করতেছেন আপনি ৩০০ টাকায়। তাহলে আপনার প্রতি google বয়সে লাভ থাকে ১৮০ থেকে ২০০ টাকা। আপনি চাইলে প্রতিদিন আনলিমিটেড গুগল ভয়েস তৈরি করতে পারেন। এবং আনলিমিটেড টাকা ইনকাম করতে পারবেন। সব আপনার উপর আপনি যেমন কাজ করবেন তেমন ইনকাম হবে।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে টিম নিয়ে কিভাবে কাজ করবেন?


আপনার কাছের যে ভাই বা বন্ধুরা আছে তাদের নিয়ে আপনি একটি টিম গঠন করবেন। টিমে ওদের কাজ করতে বলবেন। যা খরচ আছে ওগুলো আপনি বহন করবেন। ওরা শুধু আপনাকে গুগল ভয়েস তৈরি করে দিবে। তাদেরকে আপনি ওই হিসেবে টাকা দিয়ে দিবেন আপনার লাভ রেখে। এভাবে আপনি চাইলে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন আপনার টিম আপনাকে ভালো সাপোর্ট করে। অবশ্যই আপনাকে বিশ্বস্ত ক্রিয়েট করতে হবে। বিশ্বস্ত না হলে আপনার গুগল ভয়েস নিয়ে ওরা মেরে দিতে পারে স্ক্যানিং করতে পারে।আপনাদের সব সময় সতর্ক থাকতে হবে।আপনি যদি আপনার কাছের লোকদের দিয়ে কাজ করাতে পারেন তাহলে আরো ভালো হবে। তাহলে আপনার আর কোন ভয় থাকবে না আর আপনি প্রতিদিন ভালো একটা মনটা ইনকাম করতে পারবেন।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে রিসেলিং কিভাবে করবেন?

টিম নিয়ে কাজ করা আর রিফাইলিং কাজ প্রায় সেম কাজ।ফেসবুকে যারা google ভয়েস সেল করে আপনি তাদের থেকে গুগল ভয়েস কিনে নেবেন। এখন আপনি বিক্রি করবেন কত আর ওদের থেকেই কত করে কিনে নেবেন।এই প্রশ্ন আপনাদের প্রশ্ন মাথায় আসতেই পারে। এই কাজটি করার জন্য আপনাকে একটি বিশ্বস্ত বায়ার এবং বিশ্বস্ত সেলার লাগবে। যারা আপনার কাছ থেকে গুগল ভয়েস কিনবে এবং সেলার গুগল ভয়েস সেল করবে। আপনি যদি গুগল ভয়েস ৩০০ টাকা সেল দেন। তাহলে আপনি ওখান থেকে ২৮০ টাকা করে কিনবেন। আপনি যদি ১০০০ গুগল ভয়েস কিনে সেল দেন। তাহলে এখান থেকে আপনি ভালো একটা অ্যামাউন্ট ইনকাম করতে পারবেন আপনার পরিশ্রম খুব কম হবে।

আর আপনি যদি একটা বাইরের দেশের বায়ার পান তাহলে তো আপনার কপাল খুলে গেল।বাইরের দেশের যে ক্রেতা গুলা আছে তারা কিন্তু বেশি দামে গুগল ভয়েস কিনে নেয়। তারা আপনাকে প্রতি পিস গুগল ভয়েসের জন্য ৫০০ টাকা পর্যন্ত দিতে পারে। তাহলে আপনি একটু চিন্তা করেন তো যদি আপনি তাদের কাছে প্রতিদিন ১০০০ গুগল ভয়েস সেল করেন তাহলে আপনার ইনকাম কেমন হবে।

আপনি যদি ওইভাবে কাজ করতে পারেন তাহলে আপনি একদিনও ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এখন প্রশ্ন হচ্ছে আপনারা বাইরের কান্টের ভাইয়ের কিভাবে পাবেন আমি নিচে সে এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। তার আগে আপনাকে একটি গ্রুপ খুলতে হবে। এখন আপনাদের মাথায় একটা প্রশ্ন আসতে পারে যে আপনারা এত google ভয়েস কোথা থেকে কিনবেন। গুগল ভয়েস কেনার জন্য আপনি ফেসবুক ইউজ করতে পারেন। ফেসবুকে গুগল ভয়েস বাইসেল যে গ্রুপ খোলা আছে আপনি জয়েন হবেন।

গুগল ভয়েস কেনার জন্য পোস্ট করবেন অনেক সেলার আপনার কাছে আসবে। তাদের কাছ থেকে আপনি গুগল ভয়েস কিনতে পারবেন। আপনার মাথায় আরেকটি প্রশ্ন থাকতে পারে। যে সেলাররা আপনাকে এত টাকার জিনিস কেন দেবে। তারা আপনাকে কিভাবে বিশ্বাস করবে। এজন্য আপনি একটি কাজ করতে পারেন। আপনি একটি মেসেঞ্জার গ্রুপ খুলতে পারে।

ওই গ্রুপে আপনি গুগল ভয়েস সেলারদের এড করবেন। দুই একজন যদি আপনাকে গুগল ভয়েস দেয় আপনি তাদের পেমেন্ট করে পেমেন্টের স্ক্রিনশট গ্রুপে দিয়ে দিবেন। এভাবেই আপনি সেলারদের বিশ্বাস যোগ্য হয়ে উঠবেন। আস্তে আস্তে তারা আপনাকে বিশ্বাস করবে। আপনি যদি বিশ্বাস তো তার সাথে কাজ করেন তাহলে আপনি রেগুলার ওদের থেকে যখন আপনি ওরা কিন্তু আপনাকে দিবে।যদি আপনি একটি বাইরের ক্রেতা পান তাহলে তাহলে আপনি তাদের একটু প্রাইজ বানিয়ে দিবেন তাহলে তারা আগ্রহ করে আপনাকে গুগল ভয়েস দিবে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে আপনি বাইরের ক্রেতা কিভাবে পাবেন?

বাইরের ক্রেতা কৌশল

বিশ্বের মধ্যে সবথেকে চিনে গুগল ভয়েস ক্রেতা বেশি।আপনি যদি একটি বিশ্বস্ত চেনা ক্রেতা পান তাহলে আপনার কপাল খুলে গেল। এখন আপনি এই ক্রেতা পাওয়ার জন্য আপনি টেলিগ্রাম ইউজ করতে পারেন সাব ইউজ করতে পারেন। আপনি ক্রমে গিয়ে সার্চ দেবেন গুগল ভয়েস বাই সেল চীনা গ্রুপ টেলিগ্রাম।

আপনার সামনে অনেক চেনা গ্রুপ দেখতে পারবেন গুগল ভয়েস এর। আপনি গ্রুপে জয়েন হয়ে যাবেন। এখন ওখানে পোস্ট করবেন পোস্ট করার পর একজন বিশ্বস্ত ক্রেতা ১০০% পাবেন। এখন আপনি একইভাবে ক্রমে গিয়ে সার্চ দিবেন গুগল ভয়েস রাইফেল চেনা গ্রুপ হোয়াটসঅ্যাপ। সেম ভাবে জয়েন হবেন এমনকি হইয়া কিভাবে পোস্ট করবেন। ওখান থেকেও আপনি একটি ক্রেতা পেতে পারেন। আপনার বিশ্বস্ত কয়েকজন তাহলে আপনি আপনার ব্যবসা বড় করতে পারবেন। এখান থেকে প্রত্যেক মাসে আপনি লাখ টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আমাদের শেষ কথা:

আপনার ব্যবসাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হলে আপনাকে অবশ্যই অনেক পরিশ্রম করতে হবে এবং অনেক সময় ব্যয় করতে হবে। আপনাকে লক্ষ ঠিক রেখে কাজ করতে হবে।একটা কথা সবসময় মনে রাখতে হবে পরিশ্রম ছাড়া কিন্তু উন্নতি সম্ভব নয়। এখন আপনাদের যদি আমাদের এই উপরের গুগল ভয়েস মার্কেটিং এর বিষয় বস্তু গুলো ঠিক ভাবে বুঝতে পারেন । তাহলে আপনাদের বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না। এবং আমাদের যদি আপনাদের বোঝাতে কোন ভুল ত্রুটি হয়ে থাকে তাহলে ক্ষমা করে দেবেন। আল্লাহ হাফেজ.

আসসালামু আলাইকুম।আমি মোঃ জাহিদুল ইসলাম শাওন।

2 thoughts on “গুগল ভয়েস বানিয়ে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করুন”

  1. আসসালামু আলাইকুম,
    আপনার সুপরামর্শের জন্য ধন্যবাদ। তবে আপনার সাথে ফোনে যোগাযোগ করা প্রয়োজন। সম্ভব হলে ফোন নম্বরটি পাঠালে উপকৃত হতাম।

    ধন্যবাদ।

    Reply

Leave a Comment