আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই কি? কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সুবিধা অসুবিধা

হ্যালো বন্ধুরা, সবাই কেমন আছেন? আশা করি সবাই ভালো আছেন। বন্ধুরা আজকে আমি আপনাদের মাঝে নিয়ে আসলাম আরও একটি মজাদার আর্টিকেল। বন্ধুরা এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করবো আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্ট(AI) সম্পর্কে। বন্ধুরা এই আর্টিকেলে আমি আপনাদেরকে জানাবো আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স কি? আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর ব্যবহার। আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর সুবিধা ও অসুবিধা। বন্ধুরা চলুন শুরু করা যাক

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স কি? কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সুবিধা অসুবিধা
                                                                   আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স কি? কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সুবিধা অসুবিধা

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স কি?

বন্ধুরা আমরা ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে অনেক বড় বড় যোগ-বিয়োগ ,গুণ, ভাগ অংক করে থাকি। কিন্তু বন্ধুরা এই অংক গুলো যদি আমরা নিজে করতে চাই সে ক্ষেত্রে আমাদের অনেক সময় লেগে যায়। বন্ধুরা আমরা এই অংক গুলো করার ক্ষেত্রে ক্যালকুলেটরের ব্যবহার করি। যার ফলে খুব দ্রুত সে অংকটি করা সম্ভব হয়।

আরো পোস্ট পড়ুনঃ

 

বন্ধুরা আমরা তো সেই অংকের হিসাবটি করি সে ক্ষেত্রে অনেক সময় ভুল হয় কিন্তু বন্ধুরা আমরা যদি ক্যালকুলেটর ব্যবহার করি সেক্ষেত্রে আমাদের তেমন ভুল হয় না ক্যালকুলেটর ১০০% সঠিক উত্তর প্রদান করে থাকে। তাই বন্ধুরা বলা যায় আমাদের বুদ্ধির থেকে যান্ত্রিক শক্তি খুব  তাড়াতাড়ি হিসাব করা যায়।

তাই বলা যায় কিছু কিছু ক্ষেত্রে মানুষের চেয়ে মেশিন খুব দ্রুত কাজ করতে পারে। এবং  বন্ধুরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে এখন মেশিনের ব্যবহার করা হয়। অটোমেটিক রোবট নির্দিষ্ট একটি কাজ মানুষের তুলনায় খুব দ্রুত করতে পারে। যার ফলে আগে যে সকল কাজগুলো মানুষ করত। এখন বর্তমান সময়ে সেগুলো মেশিনে করে থাকে ।

বন্ধুরা এখন আপনারা প্রশ্ন করতে পারেন মেশিন কিংবা রোবট কিভাবে কাজ করে? বন্ধুরা আপনাদের এই প্রশ্নের উত্তরটিও আমি নিয়ে এসেছি। এর উত্তর খুবই সহজ । মেশিনের ভেতরে একটি প্রোগ্রাম দেওয়া থাকে । এবং সেই প্রোগ্রামে থাকার নির্দেশনা অনুযায়ী মেশিন সক্রিয় থাকে। যার ফলে মেশিনের নিজ থেকে কোন একটি সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা নেই। কিন্তু বর্তমান সময়ে মেশিনের জন্য এমন একটি প্রোগ্রামিং তৈরি করা হচ্ছে। যার মাধ্যমে মেশিন সিদ্ধান্ত নিতে পারবে। সেই প্রোগ্রামটি হলোঃ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স।আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স কে সংক্ষেপে (AI) বলা হয়।

একজন মানুষ যেমন সময়ের সাথে সাথে তার ভুল থেকে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে শেখে । তেমনি আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) তার ভুল থেকে সিদ্ধান্ত নিয়ে ক্রমাগত ভুল সংশোধন করে। বর্তমানে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) যে সকল কাজ করতে সক্ষম যা দেখে অনেকেই অবাক হয়। এখন প্রশ্ন হলো আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স কি? আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর ব্যবহার। আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর সুবিধা ও অসুবিধা।

বন্ধুরা আপনারা যারা ইন্টারনেট ব্যবহার করেন। তারা নিজের অজান্তেই আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) এর ব্যবহার করছেন। এমনকি কিছু ক্ষেত্রে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হচ্ছেন । যেমন আপনি যখন ইউটিউব কিংবা ফেসবুকে ভিডিও দেখেন ।তখন রিকমেন্ডেশনে কোন ভিডিও আসবে তা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) নির্ধারণ করে । অর্থাৎ আপনি কোন ধরনের ভিডিও দেখেন আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) স্টাডি করে । আর  সেই রিলেটেড ভিডিও গুলো আপনার সামনে হাজির করে । যার ফলে আপনারা খুব সহজেই আপনার প্রয়োজনীও ভিডিও গুলো পেয়ে যান।

তাছাড়া বন্ধুরা টাইপ করার সময় দেখবেন। কীবোর্ড এর উপরে আপনার লেখা অনুযায়ী কিছু লিখা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) অফার করে। আপনি কি লিখছেন এর ওপর ভিত্তি করে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) আপনাকে কিছু লিখা অফার করে।

এ ছাড়া বন্ধুরা কিছু ওয়েবসাইটে দেখতে পেয়ে যাবেন ভয়েস থেকে টেক্সট এ রূপান্তর করা যায়। আবার কিছু ওয়েবসাইটে দেখা যায় টেক্সট থেকে ভয়েস এ রূপান্তর করা যায়। আবার কিছু ওয়েবসাইটে দেখা যায় আপনাকে নানা রকম সমস্যার সমাধান করে দেবে সেই ওয়েবসাইট। আপনার যদি মনে কোন প্রশ্ন জাগে। আপনি সেই প্রশ্ন তাদের করার সাথে সাথে আপনার প্রশ্নের উত্তর দিয়ে দেয়।

এছাড়া বন্ধুরা, দেখা যায় আপনার নির্দেশনা অনুযায়ী পিকচার তৈরি করে দেবে । আপনার সকল প্রকার কাজগুলো করে দেয় । বন্ধুরা, ওপরে যে সকল কথাগুলো বললাম এ সকল কাজগুলো আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (AI) করে দেয়। যার ফলে আমাদের বর্তমান জীবনকে আরো সহজ বানিয়ে দেয়।আসলে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (AI) এর ব্যবহার পরিধি অনেক। বর্তমানে এই এতটাই দ্রুত যে কিছু ক্ষেত্রে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (AI) মানুষের থেকে বেশি ভালো কাজ করে।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই এর সূচনা হলো কিভাবে? 

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) এর ধারণা প্রাচীন  হলেও আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) নিয়ে কাজ শুরু হয় ২০ শতকের মাঝামাঝি সময় থেকে।১৯৫৭ সালের সাইকোলজিস্ট Frank Rosenbaltt প্রথম নিউরন নেটওয়ার্ক বেল্ট পারসেপট্রন তৈরি করেন।যা দিয়ে ছেলে এবং মেয়ে আলাদা করতে পারতো পারসেপট্রন এই বিষয়টি মিডিয়ার প্রচারের কারণে মানুষের মধ্যে যথেষ্ট হাইট তৈরি হয়।

১৯৯৮ সালে নিউইয়র্ক টাইমস পত্রিকায় পারসেপট্রন সম্পর্কে লিখা হয়।সেখানে লেখা হয়েছিল এক সময় কম্পিউটারের নিজে নিজে  হাঁটতে পারবে । কথা বলতে পারবে। দেখতে পারবে ।লিখতে পারবে । এমনকি তার অস্তিত্ব সম্পর্কে সচেতন অনুভূতি থাকবে। এর পাশাপাশি মানুষের মত সকল কাজগুলো করতে পারবে।

এরপর থেকে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) এর কাজ থেমে থাকে নি। যার ফলস্বরূপ ১৯৮৬ সালে প্রথম সেলফ ডাইভিং কার তৈরি হয়। সেই কারটি ২ কিলোমিটার গতিকে গতিতে নিজে নিজে চলতে পারবে।এবং এটি অ্যালভিন নামক নিউরন নেটওয়ার্কের মাধ্যমে কাজ করতো। পরবর্তীকালে ১৯৯৪ সালে ইয়াং লি কুন প্রথম এমন নিউরন নেটওয়ার্ক তৈরি করেন যা হাতে লেখা সংখ্যা সনাক্ত করতে পারে।এভাবে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI)গবেষণা চলতে থাকে । এবং বর্তমান সময়ে সারা বিশ্বে এর ব্যবহার ব্যাপকভাবে জনপ্রিয়তা পেয়েছে এবং ভবিষ্যতে এ আই এর ব্যবহার আরো বেড়ে যাবে।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই কিভাবে কাজ করে?

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) কিভাবে কাজ করে এ প্রশ্নের উত্তর সহজে দেওয়া সম্ভব না। কারণ এই বিষয়টি একটি বিশাল ধারণা এবং এর পিছনের রয়েছে কমপ্লিট সব গাণিতিক বিষয়। এরপরেও সহজ করে বলার চেষ্টা করছি।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI)সম্পর্কে জানতে হলে আপনাকে প্রথমে মেশিন লার্নিং সম্পর্কে জানতে হবে। মেশিন লার্নিং হচ্ছে মেশিনকে শেখানো কিভাবে একটি কাজ ভালোভাবে সম্পন্ন করতে হবে। অর্থাৎ কিভাবে ছবিতে থাকা অবজেক্ট এ কি তা সনাক্ত করতে হবে কিংবা কিভাবে ভয়েসের মাধ্যমে টেক্সট রূপান্তর করতে হবে। এছাড়াও সকল রকম কাজ সম্পন্ন করতে হবে।

মেশিনকে শেখানোর বিষয়টি অনেকটা মানুষের মত। একজন বাচ্চা যেমন ছোটকাল থেকে অন্য মানুষের দেখে শিখে। ওর নিজের ভুল থেকে শিখে । আবার আমাদের দেওয়া নির্দেশনা থেকে শিখে । মেশিন ঠিক একই ভাবে শেখানো হয়। মেশিনটি সেখানে পদ্ধতি মূলত তিন ধরনেরঃ 

  1. Supervised Learning
  2. Unsupervised Learning
  3. Reinforcement Learning
আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স কি? কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সুবিধা অসুবিধা
                                                                              কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সুবিধা অসুবিধা

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই এর সুবিধাঃ

বন্ধুরা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) আসার ফলে মানুষের কাজ আরও সহজে হয়ে গিয়েছে। যে সকল কাজ করতে এক ঘন্টা সময় লাগতো । সেই সকল কাজগুলো এআই এক মিনিটের মধ্যে করে দিচ্ছে। যার ফলে মানুষের জীবন আরো সহজ হয়ে গেছে। এর পাশাপাশি বন্ধুরা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) সাহায্য নিয়ে প্রায় সকল রকম কাজ করা যাচ্ছে। যার ফলে মানবজাতি খুব সহজেই সকল কাজ করে ফেলছে। এবং আগের থেকে বেশি লাভবান হচ্ছে।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই এর অসুবিধাঃ

বন্ধুরা বিজ্ঞানের যেমন সুবিধা রয়েছে। তেমনি অসুবিধা রয়েছে ।বন্ধুরা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) বিজ্ঞানের বাইরে না। তাই আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) এর  অনেক অসুবিধা রয়েছে। বন্ধুরা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) আসার ফলে সকল কাজ করতেছে। যার ফলে মানুষ যে সকল কাজগুলো করতো সেই সকল কাজ আর মানুষ পাচ্ছে না এবং মানুষ তার জীবিকা নির্বাহ করতে ব্যর্থ হচ্ছে। বন্ধুরা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) এর যত উন্নতি হবে তার সাথে সাথে মানুষের জীবনযাত্রার মান বৃদ্ধি পাবে। এবং জনসম্পদ ধীরে ধীরে কাজ পাবে না। যার ফলে মেধার কোন দাম থাকবে না সকল কাজ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) করে দেবে।

দেশে বেকারত্বের সংখ্যা বেড়ে যাবে । এছাড়া বন্ধুরা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI) এর অনেক অসুবিধা রয়েছে।আপনি মোবাইল চালাচ্ছেন। আপনার মোবাইল থেকে আপনার তথ্য নিয়ে বিশ্লেষণ করে আপনি যে সকল কাজগুলো করছেন সে সকল কাজ করতে আপনাকে সাহায্য করছে। যার ফলে আপনার প্রাইভেসি থাকছে না । আপনার সকল গোপন ইনফরমেশন নিয়ে নিচ্ছে।বন্ধুরা বিশ্বের এমন একটি সময় আসবে। যখন মানুষের নিজের কোন প্রাইভেসি থাকবে না সব জায়গাতে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এআই (AI)এর  ব্যবহার করা হবে ।

শেষ কথাঃ

বন্ধুরা আজকের পোস্টটি এখানে শেষ করছি। বন্ধুরা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স নিয়ে আমি যতটুকু জানি ততটুকু আপনাদের মাঝে শেয়ার করলাম ।  বন্ধুরা আমার কোন ভুল হয়ে থাকে। তাহলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন এবং আপনারা যতটুকু জানেন ততটুকু কমেন্টের মাধ্যমে আমাকে জানাবেন। যার মাধ্যমে আমি আপনাদের কাছ থেকে অনেক কিছু শিখতে পারবো এবং বন্ধুরা আপনাদের যদি প্রশ্ন থাকে তাহলে আপনারা কমেন্ট করতে পারেন আমি আপনাদের সকল প্রশ্নের উত্তর দিয়ে আপনার সমাধান করে দেব । এমন মজাদার পোস্ট পেতে আমাদের সাথে থাকুন। ধন্যবাদ

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *